1. admin@sylheterkujkhobor.com : admin :
মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৫:২৯ অপরাহ্ন

ঈদে নিরাপত্তায় কড়া অবস্থানে সিলেট প্রশাসন- নিশারুল আরিফ

সিলেটের খোঁজখবর
  • আপডেট সময় : রবিবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২২
  • ৫৭ বার পঠিত

ডেস্কঃ দু’বছর পর আবার জমেছে সিলেটে ঈদের বাজার। করোনা নামক বৈশ্বিক মহামারির কারণে গত দু’বছর বিধিনিষেধের খড়গ থাকায় একেবারে শেষ মুহুর্তে কিছু বেঁচাকেনা হলেও মানুষ স্বস্তি ও আনন্দে কাটাতে পারেনি ঈদ। তবে এবার নেই করোনার দাপট। তাই রমজানের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকেই সিলেটে শুরু হয়েছে ঈদের কেনাকাটা।

এদিকে, ঈদ উপলক্ষে সিলেটের মানুষের কেনাকাটা এবং ঈদ উদযাপনকে নিরুদ্বিগ্ন করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়েছে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ (এসএমপি)। চলমান সময়ে এবং ঈদ পরবর্তী ছুটির দিনগুলোতে নগরবাসীর সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে বলে সিলেটভিউ-কে দেওয়া এক একান্ত সাক্ষাতকারে জানিয়েছেন এসএমপি কমিশনার নিশারুল আরিফ।

নগরবাসীকে রমজানের মোবারকবাদ ও আগাম ঈদ শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, পুলিশ হেডকোয়াটার্সের দেয়া ক্যালেন্ডার অনুযায়ী আমরা নিয়মিত কাজ করি। সেই ক্যালেন্ডার অনুযায়ীই সিলেট নগরবাসীর নিরাপত্তা নিশ্চিতে আমরা বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি।

নিশারুল আরিফ বলেন, টানা দু’বছর মাহামারি করোনার কারণে সিলেটসহ সারাদেশের মানুষ ঈদে তেমন একটা কেনাকাটা করতে পারেননি মানুষজন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কঠোর এবং কার্যকর পদক্ষেপের কারণে আমাদের দেশে করোনা পরিস্থিতি এখন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে। আর তাই এবার অনেক আগে থেকেই সিলেটবাসী ঈদের কেনাকাটা করতে নেমে পড়েছেন। তাদের সুবিধার জন্য আমরা চার স্তরের নিরাপত্তা দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছি। পুলিশের পাশাপাশি আইনশৃখলা রক্ষাকারী অন্যান্য বাহিনীর সদস্যরাও সক্রিয় রয়েছেন। সিলেটের আইনশৃখলা পরিস্থিতি যথেষ্ট ভালো। তবে তা সত্ত্বেও আত্মতৃপ্তির কোনো সুযোগ নেই। ১০ রমজানের পর থেকে মানুষ ঈদের কেনাকাটায় ব্যস্ত হয়ে পড়েন। এবারও তাই হয়েছে। আমরা লোকজনের কেনাকাটা নিরুদ্বিগ্ন করতে প্রয়োজন উদ্যোগ গ্রহণ করেছি।

সিলেট মহানগরীর যানজট নিয়ন্ত্রনের ব্যাপারে তিনি বলেন, এ সময়টাতে নগরীতে কেনাকাটা করতে প্রচুর মানুষ বাইরে থেকে প্রবেশ করেন। তাদের সাথে প্রবেশ করে প্রচুর যানবাহনও। নাড়ির টানে অনেকেই নিজের বাড়ি বা বাসায় ফেরত আসেন। এ অবস্থায় নগরীতে বাড়তি চাপ পড়ে। আমরা এসব ব্যাপারে সতর্ক। এ সময়টাতে যাতে পুলিশ ও পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা বাড়তি সতর্ক থাকেন, সবার চলাচল যাতে নির্বিঘ্ন হয় সে ব্যাপারে আমরা কাজ করছি। আমরা পরিবহন মালিক শ্রমিক এবং যাত্রীদেরর সচেতন করছি। পরিবহন মালিক শ্রমিকদের সাথে আমরা সার্বক্ষলিক যোগাযোগ রাখছি। আপনাদের মাধ্যমে আবারও সবাইকে এসব ব্যাপারে সতর্ক থাকার আহ্বান জানাই। যাতে নগরীতে সড়কে শৃঙ্খলা বজায় থাকে সে জন্য নিজ নিজ অবস্থান থেকে সবাইকে সচেতন থাকতে হবে এবং কাজ করতে হবে।

নিশারুল আরিফ বলেন, ঈদের বাজার ও ছুটির সময়টাতে নানা ধরনের প্রতারক, পকেটমাররা সক্রিয় হয়ে উঠার চেষ্টা করে সিলেট নগরীতে। তাদের ব্যাপারে পুলিশ প্রশাসন সতর্ক। কোনো দুষ্কৃতকারী যাতে কোনো ধরনের সুবিধা আদায় করতে না পারে সেজন্য আমরা যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। তাদের চিহ্নিত করে বাধা দেয়া ও বল প্রয়োগ করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। এসময়টাতে অজ্ঞান ও মলম পার্টির সদস্যরা মাথাচাড়া দিয়ে উঠার চেষ্টা করে। তারা সাধারণ পরিবহন এবং গণপরিবহনে তাদের কুকর্ম চালানোর চেষ্টা করে। এক্ষেত্রে যাত্রীদের সতর্ক থাকতে হবে। কোনো অবস্থাতেই অপরিচিত কারও দেয়া কোনো খাবার গ্রহণ করা যাবে না। প্রয়োজনে পুলিশের সাহয্য নিতে হবে।

বৈশ্বিক মহামারি করোনা সম্পর্কে এসএমপি কমিশনার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণের কারণে ইতিমধ্যে দেশের মানুষ করোনা টিকার প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ সম্পন্ন করেছেন। একটা বড় অংশ তৃতীয় ডোজও নিয়েছেন। তাই আমাদের দেশে করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার প্রায় শূন্যের কোটায়। সিলেটে এই অবস্থাটাকে ধরে রাখতে হবে। মাস্ক ছাড়া চলাফেরা করা যাবে না এবং সবাইকে অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।




Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর










x