1. admin@sylheterkujkhobor.com : admin :
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১১:৫৮ অপরাহ্ন

কুলাউড়ায় প্রয়োজন ছাড়া রাস্তায়, মিছে জবাবে জরিমানা

  • আপডেট সময় : শনিবার, ৩ জুলাই, ২০২১
  • ২১৩ বার পঠিত

সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করে অযথা ঘর থেকে বাইরে বের হওয়ায় ৪০টি মামলায় ৩১ হাজার টাকা জরিমানা করে তা আদায় করে ভ্রাম্যমান আদালত। এছাড়াও ৭ জনকে আটক করে কুলাউড়া থানায় রাখা হয়েছে।

এদিকে প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হয়ে প্রশাসন, সেনাবাহিনী, বিজিবি সদস্যদের জেরার মুখে পড়তে হচ্ছে অনেককে। প্রশাসনের কথার মারপ্যাঁচে অনেকেই সদুত্তর দিতে না পেরে গুনতে হয়েছে জরিমানা। অনেকে ভুয়া প্রেসক্রিপশন বা পুরনো ওষুধ পলিথিনে মুড়ে বের হয়েছেন সড়কে। তারাও রেহাই পাচ্ছেন না জরিমানা থেকে। বের হওয়াদের বেশীরভাগ তরুণ ও যুবক। বিচ্ছিন্নভাবে মহিলা ও বয়স্কদেরও দেখা যায় শহরে ঘুরাঘুরি করতে।

শুক্রবার (২ জুলাই) উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে অভিযান পরিচালনা করে এসব জরিমানা করা হয়।

জানা যায়, শুক্রবার সকালে উপজেলার ব্রাহ্মণবাজারে ব্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট নাজরাতুন নাঈম। এসময় তিনি স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করায় একজনকে ৫শত টাকা জরিমানা করে তা আদায় করেন। বেলা ৩টার দিকে তিনি উপজেলার জয়চন্ডি ইউনিয়নের রঙ্গিরকুল, আছুরিঘাট এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন। এসময় তিনি ৯টি মামলায় সাড়ে ৪হাজার টাকা জরিমানা করে তা আদায় করেন।

কঠোর লকডাউনের বিধিনিষেধ মানাতে সন্ধ্যা পরবর্তীতে অভিযানে নামেন কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা ও নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট এ টি এম ফরহাদ চৌধুরী। তিনি উপজেলার চৌধুরীবাজার, টিলাগাঁও, ঢিলেরপাড়, পীরেরবাজার, বাংলাবাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন। অভিযানকালে স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করায় ২৫টি মামলায় ২৫ হাজার ৯শত টাকা জরিমানা করে তা আদায় করেন।

অভিযানে সার্বিক সহযোগিতা করে কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ বিনয় ভূষন রায় এর নেতৃত্বে পুলিশ মাঠে তৎপর ভূমিকা পালন করে।

এছাড়াও কঠোর লকডাউনে সরকারের দেয়া নির্দেশনা বাস্তবায়নে সিলেট সেনানিবাসের ১৮ ফিল্ড রেজিমেন্ট আর্টিলারী ক্যাপ্টেন সাজ্জাদ হাবীবের নেতৃত্বে সেনাবাহিনীর একটি টিম ও বিজিবি উপজেলার বিভিন্ন এলাকা টহল দেয়।

সরেজমিনে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, ঘুড়ি ঘুড়ি বৃষ্টির মধ্যেও কিছু মানুষ বাইরে বের হয়েছেন। প্রায় সকলের কাছে মাস্ক থাকলেও তা কারও বুক পকেটে অথবা প্যান্টের পকেটে। আবার কারও মুখে মাস্ক থাকলেও তা থুঁতনির নিচে, গলায় শোভা পাচ্ছে। প্রশাসনের কর্মকর্তা, সেনাবাহিনী, পুলিশ, বিজিবি দেখলেই মাস্ক দিয়ে নাক-মুখ ঢেকে দিচ্ছেন। এছাড়াও অনেকে পুরনো ওষুধ একটি পলিথিন ব্যাগে করে বের হতে দেখা গেছে। ম্যাজিস্ট্রেট প্রশ্ন করলে কোন সদুত্তোর দিতে পারছিলেন না অনেকেই।

এবিষয়ে কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা এটিএম ফরহাদ চৌধুরী বলেন, অনেকেই প্রেসক্রিপশন নিয়ে বের হয়েছেন। তাদেরকে প্রশ্ন করলে কেউ কেউ কথার জালে ফেঁসে যাচ্ছেন। কুলাউড়া ফার্মেসীগুলোর মালিকদের সতর্ক করে দিয়েছি। কোন প্রেসক্রিপশন ছাড়া যেন ওষুধ বিক্রি না করেন। আর ওষুধ বিক্রি করলে যেন বিক্রয় রশিদ সাথে করে দেয়া হয়। এতে করে জরুরী প্রয়োজনে বের হওয়া প্রকৃত ব্যক্তিদের সনাক্ত করা সহজ হবে। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে সরকারের নির্দেশনা বাস্তবায়নে আমরা কঠোর অবস্থানে আছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© All rights reserved © 2021 sylheter kuj khobor.com
Theme Customized By BreakingNews