1. admin@sylheterkujkhobor.com : admin :
শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০১:২৮ অপরাহ্ন

ডিসকাউন্টে প্লেনের টিকিটের নামে প্রতারণা, টার্গেট প্রবাসীরা

সিলেটের খোঁজখবর
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ১৫ মার্চ, ২০২৪
  • ৯৬ বার পঠিত

কুয়েত প্রবাসী ছিলেন লিটন মিয়া (৩৭)। একসময় দেশে ফিরে ভিসা প্রসেসিংয়ের কাজ শুরু করেন। তারই ব্যবস্থাপনায় একজন বিদেশ গিয়ে আর ফেরেননি। এমনকি লিটনের পাওনা টাকাও পরিশোধ করেননি।

এ ঘটনায় প্রতিশোধপরায়ন হয়ে লিটন নিজেই নামেন প্রতারণায়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ডিসকাউন্টে বিভিন্ন এয়ারলাইন্সের টিকিট বিক্রির বিজ্ঞাপন দিয়ে শুরু করেন প্রতারণার কাজ।

বিজ্ঞাপন

কম দামের টিকিট বিক্রির প্রলোভন দেখিয়ে টাকা নিতেন লিটন। কিন্তু সরবরাহ করতেন জাল টিকিট। এ প্রতারণায় বিশেষ করে প্রবাসীদের ফাঁদে ফেলে তার মাসিক আয় ছিল প্রায় তিন লাখ টাকা।

এ ঘটনায় লিটনসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। বাকিরা হলেন মো. বেল্লাল হোসেন (৪৭) ও মো. রিয়াজ শেখ (৩৫)। এসময় তাদের কাছ থেকে দুটি মোবাইল, একটি কম্পিউটার ও চেকবইসহ ডেবিট কার্ড জব্দ করা হয়।

ডিবি জানায়, কুয়েত প্রবাসী মজনু মিয়া ২৫ ফেব্রুয়ারি তার স্বজন হুমায়ুন কবিরকে জানান, তিনি মে মাসে বাংলাদেশে ছুটিতে আসবেন। কুয়েত থেকে বাংলাদেশে আসা-যাওয়ার টিকিটের মূল্য বেশি হওয়ায় বাংলাদেশ থেকে টিকিট কিনতে বলেন।

ডিসকাউন্টে প্লেনের টিকিটের নামে প্রতারণা, টার্গেট প্রবাসীরা

কিন্তু হুমায়ুন কবিরের কোনো পরিচিত ট্রাভেলস না থাকায়, তিনি অনলাইনে ‘সান ফ্লাওয়ার ট্রাভেলস ইন্টারন্যাশনালে’র খোঁজ পান। যেখানে ১৫ শতাংশ ডিসকাউন্টে (কুয়েত-ঢাকা-কুয়েত) টিকিট বিক্রি করা হচ্ছে- এমন বিজ্ঞাপন দেখেন। এরপর ফেসবুকে দেওয়া ফোন নম্বরে যোগাযোগ করলে টিকিট দিতে পারবে বলে জানান লিটন।

 

এরপর ২৬ ফেব্রুয়ারি হুয়ায়ুন কবির যাত্রাবাড়ীর ধলপুর এলাকায় লিটন মিয়ার সঙ্গে দেখা করেন। দেখা করার পর লিটনকে নগদ পাঁচ হাজার টাকা ও মজনু মিয়ার পাসপোর্টের ফটোকপি দেন। বাকি ৪৭ হাজার টাকা ব্যাংক অ্যাকাউন্টে দেওয়া হয়।

টাকা পাওয়ার পর চক্রটি মজনু মিয়ার হোয়াটসঅ্যাপে আল জাজিরা বিমানের টিকিটের কপি পাঠায়। পরবর্তীতে যাচাই করে দেখা যায় টিকিটটি জাল। এরপর লিটনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে চাইলে মজনু দেখেন, তাকে হোয়াটসঅ্যাপে ব্লক করে দেওয়া হয়েছে।

ডিবি জানায়, লিটনের পড়াশোনা চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত। তিনি ২০১২ সালে কুয়েতে গাড়িচালক হিসেবে যান। দেশে ফিরে শুরু করেন ভিসা আবেদনের কাজ।

 

প্রাথমিকভাবে ফেসবুকে ‘সান ফ্লাওয়ার ট্রাভেলস ইন্টারন্যাশনাল’ নামে একটি পেজ খুলে ১৫ শতাংশ ডিসকাউন্টে টিকিট বিক্রির কথা বলে পোস্ট দেন লিটন। চটকদার বিজ্ঞাপনে বিদেশে কর্মরত শ্রমজীবী লোকজন আকৃষ্ট হয়ে ফেসবুকে মেসেঞ্জার ও হোয়াটসঅ্যাপে যোগাযোগ করেন। তাদের মধ্য থেকে টার্গেট বাছাই করে ডিসকাউন্টে টিকিট বিক্রির টোপ ফেলেন লিটন।

কাস্টমারদের তার অফিস সিটি সেন্টারের লিফটের ১১ তলায় বলে জানাতেন। এছাড়া বিশ্বাসযোগ্যতা বাড়ানোর জন্য ব্যাংক অ্যাকাউন্টে টাকা দিতে বলতেন। লিটনের অবর্তমানে কাস্টমারদের সঙ্গে কথা বলেন রিয়াজ। টিকিট ক্রেতাদের টাকা পাওয়ার পর তাদের হোয়াটসঅ্যাপে ব্লক করে দেওয়া হয়।

ডিসকাউন্টে প্লেনের টিকিটের নামে প্রতারণা, টার্গেট প্রবাসীরা

শুক্রবার (১৫ মার্চ) এ বিষয়ে ডিবিপ্রধান মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেন, বিভিন্ন দেশে অবস্থান করা প্রবাসীরা সাধারণত দেশে আসার সময় কম দামে টিকিট খুঁজেন। আর এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে ১০-১৫ শতাংশ ছাড়ে টিকিট বিক্রির ফাঁদ পাতেন লিটন। এভাবে অনেকের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে তার মাসিক আয় হতো ৩-৪ লাখ টাকা।

তিনি বলেন, অনেক প্রবাসীরা বিমানবন্দরে গিয়ে বর্ডিংয়ের সময় জানতে পারেন টিকিটটি ভুয়া। অনেকে বিদেশ থেকে দেশে এসে এ বিষয়ে অভিযোগ করেন না। দেখা যায়, ৯৯ শতাংশ মানুষ ঝামেলা মনে করে অভিযোগ করেন না।

তাই ডিসকাউন্ট দিলেই যাচাই না করে টিকিট কেনা যাবে না। আর প্রতারিত হলে পুলিশকে অভিযোগ করতে বলেন তিনি।

ডিবিপ্রধান বলেন, আসন্ন ঈদ উপলক্ষে বিভিন্ন প্যাকেজের অফার দেওয়া হচ্ছে। কম দামে ৩-৪ দেশ ঘুরানোর কথা বলা হচ্ছে। দেখা গেলো টিকিট ভুয়া, হোটেল বুকিংয়ের কাগজও ভুয়া দেবে। তাই এমন প্যাকেজ দেখলে যাচাই-বাছাই করে যেন টাকা দেন সবাই।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর










x