1. admin@sylheterkujkhobor.com : admin :
সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ০৮:৩০ অপরাহ্ন

বৃষ্টির মধ্য চলছে গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদের উপনির্বাচন কেন্দ্র ফাঁকা

সিলেটের খোঁজখবর
  • আপডেট সময় : বুধবার, ১৫ জুন, ২০২২
  • ১৫১ বার পঠিত

মেঘলা আবহাওয়া ও হালকা বৃষ্টির মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদের উপনির্বাচন।

বুধবার সকাল ৯টা থেকে এ উপজেলায় উপনির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। চলবে বিকাল ৫টা পর্যন্ত। তবে সকাল সাড়ে দশটার দিকে উপজেলার কয়েকটি ভোটকেন্দ্র ঘুরে দেখা যায়, কেদ্রগুলো প্রায় পুরোটাই ফাঁকা। মাঝে মধ্যে দু’চার জন ভোটার কেন্দ্রে প্রবেশ করলে তারা নিজ নিজ ভোটাধিকার প্রয়োগ করে চলে যাচ্ছেন।

এ নির্বাচনে সরকারি দল আওয়ামী লীগের নৌকা নিয়ে লড়ছেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মরহুম ইকবাল আহমদ চৌধুরীর ভাই মঞ্জুর কাদির শাফি চৌধুরী এলিম। আর তার প্রতিদ্ব›দ্বী হিসেবে ঘোড়া প্রতিক নিয়ে লড়ছেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সফিক উদ্দিন।

নির্বাচন সংশ্লিষ্ট নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, শান্তিপূর্ণ ভাবে ভোটগ্রহণ করতে  পুলিশ আনসারের সাথে র‌্যাব বিজিবিসহ অন্যান্য সংস্থার সদস্যরাও মাঠে সক্রিয় থাকবে।৷ তাছাড়া ম্যাজিস্ট্রেট থাকবেন ৮ জন।

নিরাপত্তা নিশ্চিতে পুলিশের সাথে থাকবে আনসার, র‌্যাব বিজিবি এবং অন্যান্য সংস্থার কর্মীরা। এই উপজেলায় মোট ১০২টি কেন্দ্রের মধ্যে ৯৩টি কেন্দ্রকেই প্রশাসন ‘গুরুত্বপূর্ণ’ হিসাবে চিহ্নিত করেছে। এখন আর নির্বাচনে ‘ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র’ শব্দটি ব্যবহার করেনা প্রশাসন। বরং ‘গুরুত্বপূর্ণ’ শব্দটিই ব্যবহার করা হচ্ছে। এই ৯৩টি কেন্দ্রের দিকে বিশেষ নজর থাকবে প্রশাসনের।

গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচনে মোট ১০২টি কেন্দ্রে পুলিশ প্রশাসনের ১০২টি দল দায়িত্ব পালন করছে। প্রতিটি দলে কমপক্ষে পাঁচজন সদস্য রয়েছে। সাথে রয়েছে আনসারও। দলের সংখ্যা সমান, ১০২টি। তবে সদস্য সংখ্যা পুলিশ থেকে দ্বিগুণের চেয়েও বেশী। প্রতিটি কেন্দ্রে অন্তত ১০ থেকে ১২ জন আনসার সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন।

এছড়া পুরো উপজেলায় দুই প্লাটুন বিজিবিও মোতায়েন রয়েছে বলে জানিয়েছে প্রশাসনের নির্ভরযোগ্য সূত্র। র‌্যাব সদস্যরা বরাবরের মতোই স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসাবে কাজ করছেন। প্রতিটি কেন্দ্রে সাদা পোশাকে গোয়েন্দারাও সক্রিয় রয়েছেন।

পুরো নির্বাচনী প্রক্রিয়া সামলাতে মোট ৮জন ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন। তাদের মধ্যে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রয়েছেন ৫ জন। আর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের সংখ্যা-৩ বলে জানিয়েছেন গোলাপগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সাইদুর রহমান।

এদিকে নির্বাচন কমিশনের উর্ধ্বতন একটি সূত্র জানিয়েছে কোথাও কোন কেন্দ্রে কোন ধরনের ‌’গুরুতরো’ সমস্যা হলে, বিশেষ করে কেন্দ্র দখল বা দাঙ্গা হাঙ্গামার মতো কোন ঘটনা ঘটলে সাথে সাথে ঐ কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হবে।

সিলেট জেলা নির্বাচন অফিসের নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, নির্বানী সরঞ্জাম নিয়ে মঙ্গলবার রাতের মধ্যেই সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রের দায়িত্বশীলরা নিজনিজ কেন্দ্রে পৌঁছায়। একটি সুন্দর শান্তিপূর্ণ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন উপহার দিতে তারা ভোটার প্রার্থী এবং তাদের কর্মী সমর্থক ও সচেতন নাগরিকদের সহযোগীতা চেয়েছেন তারা।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর










x