1. admin@sylheterkujkhobor.com : admin :
বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৮:৩২ পূর্বাহ্ন

মির্জা ফখরুলের অভিযোগের বিষয়ে যা বললেন পুলিশ কর্মকর্তা বিপ্লব

সিলেটের খোঁজখবর
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৪৩ বার পঠিত

‘পুলিশ ব্যাগে করে ককটেল নিয়ে গিয়ে সেগুলো বিএনপির কার্যালয় থেকে উদ্ধার দেখিয়ে নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দেবে’- দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এ বক্তব্য ঠিক নয় বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) যুগ্ম কমিশনার (অপারেশন) বিপ্লব কুমার সরকার। ফখরুলের অভিযোগকে মিথ্যাচার বলেও উল্লেখ করেন এই পুলিশ কর্মকর্তা।

আজ সকাল থেকেই নয়াপল্টন ও আশপাশের এলাকায় অবস্থান নেন বিপ্লব কুমার সরকার। সেখানে ফখরুলের অভিযোগ নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে পড়েন তিনি।

গতকাল (বুধবার) নয়াপল্টনে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষের পর দলীয় কার্যালয়ে অভিযানে বেশ কিছু ককটেল উদ্ধারের কথা জানায় পুলিশ। অভিযানকালে মির্জা ফখরুল দলীয় কার্যালয়ের সামনের ফুটপাতে অবস্থান করছিলেন। তিনি ওই সময় অভিযোগ করেন, পুলিশ ব্যাগে করে ককটেল নিয়ে গিয়ে সেগুলো উদ্ধার দেখিয়ে নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা করবে।

ফখরুলের এ অভিযোগের বিষয়ে বক্তব্য জানতে চাইলে পুলিশের এই ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, ‘দায়িত্বশীল ব্যক্তিরা সুইপিং কমেন্টস করলে তা ঠিক হবে না। পুলিশ একটি রাষ্ট্রীয় বাহিনী। পুলিশের পক্ষ থেকে আনলফুল (বেআইনি) কোনো কাজ করা হয় না।’

এদিকে গতরাতে সেখান থেকে বাড়ি ফিরলেও বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে ফখরুল নয়াপল্টনে যেতে চাইলে বিজয়নগর মোড়ে তাকে আটকে দেয় পুলিশ। কেন নিজেদের কার্যালয়ে যাওয়া যাবে না- এমন প্রশ্নে তাকে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, সেটি এখন ক্রাইম সিন। সেখানে কাজ চলছে। এই মুহূর্তে কারো প্রবেশ নিষেধ। ফখরুল তখন সাংবাদিকদের আবারো একই অভিযোগ তুলে বলেন, পুলিশই বোমা নিয়ে তাদের কার্যালয়ে রেখেছে।

ফখরুলের এ অভিযোগের বিষয়ে বিপ্লব বলেন, ‘উনি এ ধরনের কথা বলে থাকলে তা উনার ব্যক্তিগত মতামত। আমরা ভেতর থেকে উদ্ধার করেছি। আমাদের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট যে উদ্ধার করেছে তা আপনারাও দেখেছেন। বোমগুলো এখানে ডিসপোজাল করা হয়েছে। এগুলো যারা বলে তারা মিথ্যাচার করে, মিথ্যাচার নিয়ে আমরা মন্তব্য করতে চাই না।’

উল্লেখ্য, বুধবার বিকাল ৩টার দিকে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সড়ক বন্ধ করে দলটির নেতাকর্মীদের জমায়েত হওয়ায় পুলিশ তাদের সরাতে গেলে দুপক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ বেধে যায়। সকাল থেকেই নয়াপল্টনে কার্যালয়ের সামনে জড়ো হতে থাকেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। একপর্যায়ে জমায়েত বড় হয়ে রাস্তার একপাশ বন্ধ হয়ে যায়। এ অবস্থায় পুলিশ তাদের সরিয়ে দিতে গেলে দুইপক্ষের মধ্যে পালটাপালটি ধাওয়া শুরু হয়। সংঘর্ষের একপর্যায়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিতে টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে।

দুই পক্ষের পালটাপালটি ধাওয়া ও সংঘর্ষে মকবুল হোসেন নামে একজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অনেক বিএনপি নেতাকর্মী।

ঢাকা মহানগর পুলিশের মতিঝিল জোনের ডিসি হায়াতুল ইসলাম খান গণমাধ্যমকে বলেন, সমাবেশের স্থান নিয়ে যখন আলোচনা চলছে তখন এ সংঘর্ষ শুরু হলো। সকাল থেকেই পল্টনে বিএনপির নেতাকর্মীরা ভিড় করতে শুরু করেন। একপর্যায়ে পুরো রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। আমরা তাদের সরে যেতে বারবার অনুরোধ করি কিন্তু তারা আমাদের কথা শোনেননি। একপর্যায়ে তাদের সরিয়ে দিতে গেলে তারা পুলিশের ওপর হামলা করে। এতে আমাদের কয়েকজন সদস্য আহত হয়েছেন।

আগামী ১০ ডিসেম্বর বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশ ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে উঠছে পল্টন এলাকা। গত মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা থেকে বিএনপির নেতাকর্মীরা নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেন।

প্রসঙ্গত, বিএনপি চায় তারা নয়াপল্টনে সমাবেশ করবে কিন্তু পুলিশ বলছে, রাস্তায় সমাবেশ বা কোনো জমায়েত হওয়া যাবে না। পুলিশ রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপিকে সমাবেশের অনুমতি দিয়েছে। তবে বিএনপি সেখানে সমাবেশ করবে না বলে অনড় রয়েছে। এরপর আরামবাগের আইডিয়াল স্কুলের সামনের রাস্তায় সমাবেশের জন্য বিএনপি অনুমতি চাইলে পুলিশে তাতে সাড়া দেয়নি। পরে পুলিশের পক্ষ থেকে টঙ্গীর বিশ্ব ইতজেমার ময়দান অথবা পূর্বাচলে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার মাঠে বিএনপি চাইলে সমাবেশ করতে পারে বলে প্রস্তাব দেওয়া হয়। এতে পুলিশের কোনো আপত্তি নেই বলেও গতকাল (মঙ্গলবার) সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয় পুলিশের পক্ষ থেকে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর










x