1. admin@sylheterkujkhobor.com : admin :
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৪৬ অপরাহ্ন

রূপগঞ্জে কারখানায় আগুনে মৃত্যুর আগে ভাইকে ফোনে শেষ আকুতি

  • আপডেট সময় : শনিবার, ১০ জুলাই, ২০২১
  • ১৮১ বার পঠিত

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে হাশেম ফুডসের কারখানায় যখন দাউ দাউ করে জ্বলছিল আগুন, সেই সময় চারতলায় আটকা পড়েছিলেন যাঁরা, তাঁদের একজন শেষ মুহূর্তে বড় ভাইকে ফোন করেছিলেন। মর্মান্তিক এই ঘটনার ২দিন পর ভাইয়ের জবানবন্দিতে উঠে এসেছে কারখানাটিতে জ্যেষ্ঠ অপারেটর হিসেবে কাজ করা মোহাম্মদ আলীর সেই সময়ের আকুতি।

আগুন নেভানোর পর কারখানা ভবনটির ওই ৪তলা থেকেই শুক্রবার দুপুরে ৪৯ জনের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পাবনার সুজানগরের বাসিন্দা মিজানুর রহমানের ছোট ভাই মোহাম্মদ আলীকে (২৮) আর জীবিত পাওয়ার আশা নেই ।

গত শনিবার গ্রামের বাড়ী হতে বাবাকে নিয়ে ঢাকায় এসেছেন ডিএনএ নমুনা দেওয়ার জন্য। ভাইয়ের লাশটা কমপক্ষে পেতে চান তাঁরা। ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গের সামনে দাঁড়িয়ে ছোট ভাইয়ের শেষ ফোনের কথা গনমাধ্যমকে বলেন তিনি।

মোহাম্মদ আলীর সেই সময়ের শেষ কথার উদ্ধৃত দিয়ে মিজানুর রহমান বলেন, ‘ভাই, আমার চারপাশে আগুন আর ধোঁয়া, আমি চোখে কিছু দেখতে পাচ্ছি না। ধোঁয়ার কারণে আমি শ্বাস নিতে পারছি না। আমি মরে যাচ্ছি, আমারে ক্ষমা করে দিয়ো। আমার আড়াই মাস বয়সী সন্তান দেখে রাইখো। ওর ভরণপোষণের দায়িত্ব তোমার। ওরে লেখাপড়া শিখিয়ে মানুষের মতো মানুষ কইরো।’

গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টা ৩ মিনিটে বড় ভাই মিজানুর এর মোবাইলে ফোন করেন ছোট ভাই মোহাম্মদ আলী । কারখানায় আগুন লাগার ২০–২৫ মিনিট পর সে ফোন করে।

মিজানুর রহমান জানান, কথার মধ্যেই কিছুক্ষণ পরে ফোন কেটে যায়। তারপর শত চেষ্টা করেও মোহাম্মদ আলীর সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেননি বড় ভাই মিজানুর।

তাঁর ভাষ্যমতে, তিন সাল ধরে এই কারখানায় কাজ করতেছিলেন মোহাম্মদ আলী। তার গ্রামের বাড়ি পাবনা জেলার সুজানগরের গণশ্যামপুর গ্রামে। বাবার নাম শাহাদাত খান। দেড় বছর আগে মোহাম্মদ আলী বিয়ে করেন। আড়াই মাস বয়সী তাঁর একটি ছেলে রয়েছে। মোহাম্মদ আলী স্ত্রীকে নিয়ে রূপগঞ্জেই থাকতেন। ছেলের জন্মের কয়েক মাস আগে স্ত্রীকে গ্রামের বাড়ী পাবনা পাঠিয়ে দেন।

বড় ভাই মিজানুর রহমান ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গের সামনে যখন কথা বলছিলেন, তখন বার বার কান্নায় ভেঙে পড়েন। তিনি বলেন, ‘আমরা অনেকটাই নিশ্চিত, ভাই আর বেঁচে নেই। কমপক্ষে এখন শুধু ভাইয়ের লাশটা পেতে চাই। ভাইয়ের লাশ সনাক্ত করতে পাবনা থেকে বাবাকে নিয়ে এসেছি ডিএনএ নমুনা দেওয়ার জন্য।’

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© All rights reserved © 2021 sylheter kuj khobor.com
Theme Customized By BreakingNews