1. admin@sylheterkujkhobor.com : admin :
বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১২:২৩ পূর্বাহ্ন

সিলেটের শামসুদ্দিনে ঠাঁই নেই

  • আপডেট সময় : শনিবার, ২৬ জুন, ২০২১
  • ১৬২ বার পঠিত

করোনায় উচ্চ ঝুঁকিতে সিলেট। সংক্রমণের হার ঊর্ধ্বমুখী। দুই সপ্তাহের ব্যবধানে রোগী বেড়েছে দ্বিগুণ। হাসপাতালগুলো রোগীতে ঠাসা। পরিস্থিতি জটিল হওয়ার আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। এই অবস্থায় সিলেটে করোনা চিকিৎসার পরিধি বাড়ানো খুব জরুরি হয়ে পড়ছে বলে জানান তারা। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিসংখ্যান বলছে- গত ১০ দিনে সিলেট বিভাগে করোনায় প্রায় এক হাজার রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এই সময়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ২৫ জন।
উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন আরো অনেকেই। মৃত্যু ও সংক্রান্তের হারে বিভাগের অপর তিন জেলা থেকে কয়েকগুন বেশি সিলেট জেলার অবস্থান। ১০ দিনে আক্রান্ত ৯৯৪ জনের মধ্যে সিলেট জেলায়ই আক্রান্ত হয়েছেন ৫৬৯ জন। ফলে এ নিয়ে চিন্তিত সিলেটের স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারাও। বিশেষ করে চিকিৎসা ব্যবস্থার পরিধি নিয়ে তাদের মধ্যে চিন্তা বেশি। কারণ, এবার যারা সংক্রমিত হচ্ছেন আগের তুলনায় বেশি রোগীই হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন। তাদের অক্সিজেন সাপোর্ট লাগছেই। ফলে এই মুহূর্তে সিলেটে চিকিৎসার পরিধি বাড়ানোর বিষয়টি জরুরি হয়ে পড়েছে। স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে এরই মধ্যে আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার দুটোই বাড়ছে। গত দুই সপ্তাহ আগেও সেটি ছিল নিয়ন্ত্রণে। সীমান্তবর্তী জেলা হিসেবে গ্রামের পরিস্থিতি ততটা খারাপ না হলেও শহর ও আশপাশ এলাকার পরিস্থিতি ভয়াবহ হচ্ছে। ভারতের ডেল্টা ধরনের করোনা সিলেটেও আঘাত হেনেছে। ফলে সিলেটের হাসপাতালে এখন যারা ভর্তি হচ্ছেন তাদের প্রায় সবারই অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন সিলেটের কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. সুশান্ত কুমার মহাপাত্র। তিনি মানবজমিনকে জানিয়েছেন, সিলেটে দুই সপ্তাহ আগেও তেমন রোগী ছিল না। কিন্তু দুই সপ্তাহ পর এসে এখন রোগীর চাপ বেড়েছে। প্রতিদিন ২০-২২ জন করোনা আক্রান্ত রোগী ভর্তি হচ্ছেন। শামসুদ্দিন হাসপাতালে সর্বমোট ১০০টি বেড রয়েছে। সবক’টি বেডই রোগীতে ভর্তি। যারা ভর্তি রয়েছেন প্রায় সকলেরই অক্সিজেন সাপোর্ট লাগছে। এখন করোনা আক্রান্ত হলেই দ্রুত শারীরিক অবস্থার অবনতি হচ্ছে বলে জানান তিনি। এদিকে, শামসুদ্দিনের ১৬টি আইসিইউ বেডও রোগীতে পরিপূর্ণ। আইসিইউর জন্য অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে আশঙ্কাজনক রোগীদের। সিলেটের স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, করোনার উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে সিলেটের অবস্থান। এখন আক্রান্তের হার ২২ ভাগ। এক মাস আগে এই হার ছিল ১৫ ভাগ। ফলে এ নিয়ে এখনই স্বাস্থ্য বিভাগ উৎকণ্ঠিত না হলেও শঙ্কা অন্য জায়গায়। সিলেটের ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. জন্মোজয় দত্ত মানবজমিনকে জানিয়েছেন, ‘যারা আক্রান্ত হচ্ছেন তাদের মধ্য থেকে বেশিরভাগরই এখন হসপিটাল সাপোর্ট লাগছে। অক্সিজেনের প্রয়োজন হচ্ছে। সিলেটের শামসুদ্দিন হাসপাতালে এই সাপোর্ট দেয়া হচ্ছে। রোগীর পরিস্থিতি দ্রুত অবনতি ঘটায় আইসিইউ সাপোর্টেরও প্রয়োজন পড়ে। এখন পর্যন্ত সেই সাপোর্ট দেয়া হচ্ছে। কিন্তু কয়েকদিনের রোগী ভর্তির হার বলে দিচ্ছে; রোগী বাড়ছে। তিনি জানান, সীমান্তবর্তী জেলা হিসেবে সিলেটের গ্রাম এলাকার পরিস্থিতি ভালো। কিন্তু সিলেট নগর ও আশপাশ এলাকার পরিস্থিতি ভালো না। গ্রামকে ঝুঁকিমুক্ত রাখতে হলে সচেতনা বাড়ানো প্রয়োজন বলে জানান তিনি। এদিকে, গত বছর করোনায় সিলেটে মৃত্যুর মিছিল চলেছে। করোনার প্রথম ওয়েবের চেয়ে চলমান দ্বিতীয় ওয়েব তাণ্ডব শুরু করেছে। করোনায় মৃত্যুর মিছিল চলছে। প্রতিদিনই হাসপাতালগুলোতে মারা যাচ্ছে রোগী। গতকালও সিলেটে ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত এক বছরে করোনায় সিলেটে মারা গেছেন ৪৫৯ জন। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু সিলেট জেলায়। এ জেলায় মৃতের সংখ্যা ৩৭৫ জন। এছাড়া- সুনামগঞ্জে ৩১, হবিগঞ্জে ১৯ ও মৌলভীবাজারে ৩৪ জন মারা গেছেন। মৃত্যু ও আক্রান্তের দিক থেকে সিলেটের অপর ৩ জেলা থেকে সিলেট অনেক বেশি এগিয়ে। মৃত্যু ও আক্রান্তের হার বেড়েছে কয়েকগুন। স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সিলেটে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার কারণে আপাতত সিলেটের খাদিমপাড়া ৩১ শয্যার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও দক্ষিণ সুরমার ৩১ শয্যার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এ দুটি হাসপাতালে সিলিন্ডার অক্সিজেন দিয়ে রোগীদের সাপোর্ট দেয়া যাবে। এর বাইরে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২০০ শয্যার একটি আইসিলেশন ওয়ার্ড স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়ে রাখা হয়েছে। এই আইসোলেশন ওয়ার্ডে সেন্ট্রাল অক্সিজেন সাপোর্ট নেই। সংযোগ ও আইসিইউ বেড বাড়াতে হবে। এজন্য সরকারের উচ্চ পর্যায়ের নির্দেশনা প্রয়োজন। তবে, এই মুহূর্তে ওসমানীতে ১০ শয্যার একটি আইসিইউ ওয়ার্ড করোনা রোগীদের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে। ওই ওয়ার্ডে ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি থাকা করোনা আক্রান্ত রোগীদের আইসিইউ সাপোর্ট দেয়া হচ্ছে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© All rights reserved © 2021 sylheter kuj khobor.com
Theme Customized By BreakingNews