1. admin@sylheterkujkhobor.com : admin :
বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১২:১০ পূর্বাহ্ন

সিলেটে বেড়েছে হত্যা

  • আপডেট সময় : সোমবার, ২১ জুন, ২০২১
  • ১৭৭ বার পঠিত

সিলেটে বেড়েছে হত্যাকান্ড। গত তিন মাসে অন্তত অর্ধশতাধিক হত্যার ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে শুধু মার্চ ও এপ্রিলে ৩২টি সিলেটে বেড়েছে হত্যাকান্ড, হয়েছে। এছাড়া শুধু গত একমাসেই ১০টি হত্যার ঘটনা ঘটেছে।

সর্বশেষ সিলেটের ওসমানীনগরে তপতি চৌধুরী (৪২) নামের এক শিক্ষিকাকে বটি দিয়ে গলাকেটে হত্যা করা হয়েছে। রোববার সকালে পুলিশ স্কুল শিক্ষিকা ও বাড়ির কাজের ছেলে গৌরাঙ্গের লাশ উদ্ধার করে।

সিলেট জেলা পুলিশের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭ সালের জুন থেকে ২০২১ সালের ১৯ জুন পর্যন্ত জেলা পুলিশের ১১টি থানায় ৩১৬টি হত্যা মামলা হয়েছে। এর মধ্যে ২০১৭ সালের ১ জুন থেকে ২০১৮ সালের ১৭ জুন পর্যন্ত ১১৭টি হত্যা মামলা হয়। ২০১৮ সালের ১৮ জুন থেকে ১৭ জুন ২০১৯ পর্যন্ত ৮৫টি হত্যা মামলা, ১৮ জুন ২০১৯ থেকে ১৭ জুন ২০২০ পর্যন্ত ৫৩টি হত্যা মামলা এবং ২০২০ সালের ১৮ জুন থেকে ১৭ জুন ২০২১ পর্যন্ত মোট ৬১টি হত্যা মামলা হয়েছে। এ পরিসংখানে দেখা যায়, গত দুই বছরে ১১৪টি হত্যা মামলা দায়ের হয়।

অপরাধ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সমাজে এমন সব ভয়াবহ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটছে যা রীতিমতো লোমহর্ষক। বিভৎস কায়দায় খুন করা হচ্ছে। অপরাধগুলোর বিচার করতে না পারলে পরিস্থিতির পরিবর্তন করা সম্ভব হবে না। এসব অপরাধ বা খুন শুধু আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দিয়ে বন্ধ করা সম্ভব হবে না। গোয়েন্দা তৎপরতার পাশাপাশি সাধারণ মানুষকেও সম্পৃক্ত করতে হবে।

তারা বলছেন, করোনাকালে গৃহবন্দি থেকে দাম্পত্য কলহ, নির্যাতন, অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে উঠার কারণে পারিবারিক হত্যাকাণ্ডের ঘটনা বেড়ে গেছে। পাশাপাশি করোনার কারণে আদালতের অনেক সীমাবদ্ধতা বেড়ে যাওয়ার কারণেও ছোটখাটো সমস্যা থেকে মানুষজন হত্যাকা- সংঘটিত করছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এ ব্যাপারে সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সহ-সাধারণ সম্পাদক দেলওয়ার হোসেন দিলু জালালাবাদকে বলেন, করোনাকালে দীর্ঘসময় মানুষজন ঘরে থাকার কারণে আর্থিক অভাব অনটনে মানুষের মানসিক অস্থিরতা বেড়ে গেছে। স্বামী-স্ত্রী পারিবারিক কলহে জড়িয়ে পড়ছেন। তুচ্ছ ঘটনায় যে কেউ অন্যের উপর চড়াও হন এবং হত্যার মতো ঘটনা ঘটে। আসলে আমাদের মধ্যে এখন আর আগের মত পারিবারিক, সামাজিক বন্ধন নেই। আপনজনের প্রতি আস্থা, মূল্যবোধ নেই। কেউ কাউকে সাহায্য করতে চান না। তাই স্বামী তার স্ত্রীকে হত্যা করছে। স্ত্রী তার স্বামীকে হত্যা করছে। ছেলে মাকে হত্যা করছে। আর মা-ছেলেকে হত্যা করছে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ১৬ জুন বুধবার দাম্পত্য কলহের জেরে দুই শিশুসহ আলেমা বেগম নামে এক অন্তঃসত্ত্বা নারীকে গলা কেটে হত্যা করা হয়। এর আগে গত ২৮ মে দুপুরে বালাগঞ্জের গহরপুর এলাকার রতনপুর ইটভাটার ব্যবস্থাপক ধীরাজ পালকে তার কর্মস্থলে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে জখম করে দুর্বৃত্তরা।

এদিকে, গত চার মাসে গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ থেকে জানা যায়, গত ৭ জুন নগরীর কাজিটুলার উঁচা সড়কের একটি ফ্ল্যাটের ছাঁদ থেকে পড়ে রাবিদ আহমদ নাজিম (২৭) নামের এক যুবক মারা যান। এ ঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের করে নাজিমের পরিবার। এরপর নাজিমের সাথে ওই ফ্ল্যাটে একসাথে থাকা খালাতো ভাই-বোন পরিচয়দানকারী ৩ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তাদের মধ্যে শাহনিয়া বেগম ও তার ভাই আকবরকে রিমান্ডে নেয় পুলিশ।

৩০ এপ্রিল : পরকীয়া প্রেমের জেরে খুন হন আইনজীবী আনোয়ার হোসেন। ওইদিন রাতে পরকীয়া প্রেমের জেরে অতিরিক্ত ঘুমের ওষুধ খাইয়ে আনোয়ারকে হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন তার স্ত্রী শিপা বেগম।
১১ মে : আজমিরীগঞ্জে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধের জের ধরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে কামাল মিয়া (৫০) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছিলেন।

একই দিন ওসমানীনগরে বসত ঘরের তীরের সাথে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহতের নাম সাজনা বেগম (২৭)। তিনি উপজেলার গোয়ালাবাজার ইউনিয়নের ব্রাহ্মণগ্রাম গ্রামের অটোরিকশা চালক মিজানুর রহমানের স্ত্রী ও একই উপজেলার তাজপুর ইউনিয়নের ষাইটদা গ্রামের মৃত আছন আলীর মেয়ে।

একই দিন হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলায় পূর্ব বিরোধের জেরে ভাগ্নের ফিকলের আঘাত মামা কালু মিয়ার (৬০) মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার হবিগঞ্জ সদর উপজেলায় বিয়ের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় বাকবিত-ার জের ধরে ছুরিকাঘাতে যুবকের নাম সজিব আহমেদ (২০) নামে এক যুবক খুন হয়েছেন।

১৬ মে : রোববার সকাল ১০টার কানাইঘাট উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের উপর ঝিঙ্গাবাড়ী হরিসিং মাটি গ্রামে দিকে জলাবদ্ধতার পানি নিষ্কাশনকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের কিল-ঘুষি, লাথিতে আতাউর রহমান (৬০) নামে এক ব্যক্তি খুন হয়েছেন।

১ এপ্রিল : সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার রস্তমপুর ইউনিয়নের কাঠালবাড়ীকান্দি গ্রামে জলমহাল (মনুগাং) প্রতিপক্ষের হামলায় একজন নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৬ টার সময় উপজেলার ইটাছকি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহতের নাম আহমদ আলী (৫৫)।

২ এপ্রিল : মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে স্বামীর হাতে স্ত্রী খুনের ঘটনা ঘটেছে। শ্রীমঙ্গল উপজেলার সদর ইউনিয়েনের সুরভী আবাসিক এলাকায় বৃহস্পতিবার রাতে এই ঘটনাটি ঘটে। নিহত নারীর নাম শাহীমা আক্তার (১৯)। স্ত্রী খুনের অভিযোগে স্বামী মাসুম মিয়া (২৪) কে আটক করেছে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ। অভিযুক্ত মাসুম মিয়া হবিগঞ্জ সদর থানার সুলতানশী গ্রামের আব্দুল কাইয়ুমের ছেলে।

৩ এপ্রিল : মৌলভীবাজারে স্বামীর বাড়ির লোকজনের অত্যাচারের ১২ দিন পর গৃহবধূ রুমি আক্তার। রুমি হামিদপুর গ্রামের আনোয়ারের স্ত্রী। এই ঘটনায় স্বামী আনোয়ার, তার বড় ভাইয়ের স্ত্রী রাহেলা বেগম ও শ্বশুর-শাশুড়িকে অভিযুক্ত করে ২৬ মার্চ মামলা করেন রুমির ভাই আজহারুল ইসলাম। এই মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে আনোয়ার ও তার বাবা ইউসুফ মিয়া।

৪ এপ্রিল : বিয়ানীবাজার উপজেলার খশির সড়ক ভাংনী এলাকার শিশু শাওন (৮) রোববার সকালে তার বাড়ীর পাশে একটি খালে থেকে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে। একই দিন দিবাগত রাতে দক্ষিণ সুরমায় ৪ রিক্সা চালকের মধ্যে গাজা খাওয়া অবস্থায় কাটাকাটির জেরে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে ফরিদুল ইসলাম ম্যাজিক নামে এক রিক্সা চালক নিহত হয়েছেন।

৫ এপ্রিল : সুনামগঞ্জের দক্ষিণ সুনামগঞ্জে সৎ দুলা ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে সৎ শ্যালক রাসিক মিয়া (২৯) খুন হয়েছেন। এ ঘটনায় ঘাতক দুলাভাই নাইজুল হক, সৎবোন ও সৎ মাকে গ্রেফতার করেছে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা পুলিশ।

২৮ মার্চ : সুনামগঞ্জের নতুন কোর্ট এলাকার ১০তলা নির্মানাধীন ভবনে এক স্কুল ছাত্র খুন হয়েছে। খুন হওয়া স্কুল ছাত্রের নাম অনিক বর্মন (১৮)। সে তাহিরপুর উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের তেলীগাঁও গ্রামের প্রদীব বর্মনের ছেলে।

২৪ মার্চ : সিলেট ও সুনামগঞ্জে একদিনে দুটি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। প্রথম ঘটনাটি দক্ষিণ সুনামগঞ্জে। ওইদিন সকালে উপজেলার শিমুলবাক ইউনিয়নের মুক্তাখাই গ্রাম থেকে ইমন আহমদ (১৪) নামের এক শিশুর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা পুলিশ। নিহত শিশুটি উপজেলার কুতুবপুর গ্রামের মাসুক মিয়ার ছেলে।

একই দিনে অপর ঘটনাটি ঘটে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ওসমানীনগরে। উপজেলার দক্ষিণ গোয়ালাবাজারে সকালে একটি পাথরবাহী ট্রাক ঢাকা-মেট্রো-ট-২২-৫২১১ নং গাড়ি থেকে একটি লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহতের নাম মুজিবুর রহমান (৪০)। তিনি কুমিল্লার মুরাদনগর এলাকার বাসিন্দা।

২৩ মার্চ : মৌলভীবাজারের জুড়ীতে চা বাগানে গরু চরানোকে কেন্দ্র করে বাগালের (বাগানের পাহারাদার) দা’য়ের কোপে মনা পাশী (২০) নামে একজন নিহত হন। মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৫টায় উপজেলার সাগরনাল ইউনিয়নের সাগরনাল চা বাগানে এই ঘটনা ঘটে। নিহত মনা অমরজিৎ বাগানের ১নং নতুন টিলা এলাকার শ্রীকুমার পানিকার পুত্র।

২২ মার্চ : ছাতকে রহস্যজনকভাবে এক গৃহবধূর মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। উপজেলার কালারুকা ইউনিয়নের বিল্লাই গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত গৃহবধূর নাম বেদানা বেগম (৪৭)। তিনি কালারুকা ইউনিয়নের বিল্লাই গ্রামের মনোহর আলীর স্ত্রী ও কালারুকা গ্রামের আতাউর রহমানের মেয়ে।

একই দিনে তাহিরপুরের যাদুকাটা নদীর ভারতীয় অংশের এক কিলোমিটার ভিতরে ঘোমাঘাট এলাকায় কয়লা উত্তোলন করতে গিয়ে এক বাংলাদেশির লাশ পাওয়া যায়। নিহত বাংলাদেশি শ্রমিকের নাম সাইদুর রহমান।

২১ মার্চ : দিবাগত রাত ১টার সন্ত্রাসীদের উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে গোলাপগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা এহতেশামুল হক শাহিন (৪২) কে খুন হয়েছেন। তিনি লরিপুর গ্রামের মরহুম আব্দুল হকের ছেলে এবং উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা।

২০ মার্চ : একদিনে পৃথক ঘটনায় প্রাণহানি ঘটে ৪ জনের। ওইদিন সিলেটের বিশ্বনাথে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে ইমরান আহমদ সায়মন (২২) নামের তরুণ ব্যবসায়ী খুন হন। তিনি পৌর এলাকা দক্ষিণ মসুলা (জানাইয়া) গ্রামের মছলন্দর আলী মছনের পুত্র।

একই দিনে ভোর ৪টার মৌলভীবাজারের জুড়ি সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে বাপ্পা মিয়া নামে এক বাংলাদেশি যুবক নিহত হয়েছেন। তিনি একই এলাকার আবদুর রউফের ছেলে।

হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলায় আশরাফ হোসেন (১৫) নামে এক কিশোরের মরদেহ একইদিন উদ্ধার করে পুলিশ। তিনি আজমিরীগঞ্জ উপজেলার নগর গ্রামের আব্দুল আহাদের ছেলে। একইদিন হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে ঘুমন্ত অবস্থায় স্বামীর কাঠের আঘাতে স্ত্রীর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। তিনি উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নের মজলিশপুর গ্রামের সাজিদ উল্লার স্ত্রী গেধনী বেগম (৫২)।

১৮ মার্চ : দক্ষিণ সুরমার মোগলাবাজারের গোটাটিকর থেকে জাকির হোসেন (৪৫) নামের এক ব্যক্তি ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওইদিন সকাল ১১ টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। তিনি সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুরের ফুলভরী গ্রামের আব্দুল হোসেনের ছেলে।

একইদিনে হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলায় নিজ ঘর থেকে মা ও মেয়ের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ভোরে উপজেলার দ্বিগম্বরবাজার থেকে তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহতরা হলেন, উপজেলার পুটিজুরী ইউনিয়নের লামাপুটিজুরী গ্রামের সন্দীপ দাসের স্ত্রী অঞ্জলী (৩৫) ও তার মেয়ে পূজা (৮)।

১৭ মার্চ : হবিগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতাল থেকে বীরেশ দাশ (৬৫) নামের এক বীর মুক্তিযোদ্ধার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। বুধবার দুপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বরাদ্দকৃত কেবিনের দরজা ভেঙে তাঁর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত বীরেশ দাশ শহরের শ্যামলী এলাকার বাসিন্দা ও বানিয়াচং উপজেলার নজিরপুর গ্রামের মৃত মহেশ দাশের ছেলে।

১৬ মার্চ : প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় নাজনিন আক্তার (১৮) নামের এক স্কুল পড়ুয়া তরুণীকে খুন করে কথিত প্রেমিক। মঙ্গলবার সকালে ১০টার দিকে এই হত্যার ঘটনা ঘটেছে সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার শেওলা ইউনিয়নের বালিঙ্গা গ্রামে। এ ঘটনায় ঘাতক নাজিম উদ্দিন পাশাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। নাজনিন বালিঙ্গা গ্রামের সামসুল হক চৌধুরী’র পালিত কন্যা।

১৫ মার্চ : শহরতলীর জালাবাদ থানার শিবেরবাজারে এক মহিলার রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। মহিলার নাম ময়মুন নেছা (৫৮)। তিনি সিলেট সদর উপজেলার হাটখোলা ইউনিয়নের মাঝপাড়া গ্রামের মৃত মখন মিয়ার স্ত্রী।

১৩ মার্চ : সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার ভাটিপাড়া ইউনিয়নের নুর নগর গ্রামে দু’পক্ষের লোক জনের সংঘর্ষে শাহ মুল্লক (৪৫) নামের ১ জন নিহত হয়েছেন। শনিবার পিয়ান নদীর উত্তর পাড়ে সকাল ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহত শাহ মুল্লক নুর নগর গ্রামের আবদুস সালমের ছেলে।

১২ মার্চ : মৌলভীবাজারের রাজনগর থেকে এক ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহতের নাম লক্ষণ পাল (৩৫)। শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
একই দিনে সিলেট-সুনামগঞ্জ বাইপাস সড়কের গোয়ালগাঁও প্রবেশের রাস্তার ডান পাশ থেকে অজ্ঞান অবস্থায় অজ্ঞাত এক পুরুষকে উদ্ধার করে দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশ।

৭ মার্চ : শনিবার স্ত্রীকে নিয়ে শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে যান স্বামী। সেখানে রাত ১২টার দিকে স্ত্রী সুফিয়া বেগমকে একটি ইনজেকশন পুশ করেন স্বামী আয়নুল হক। ওই সময় নিহত সুফিয়া বেগমের বোন ইনজেশন পুশ করার বিষয়ে জানতে চাইলে তাকে আয়নুল জানায় শারীরিক অসুস্থতার কারণে তাকে ইনজেশন দেয়া হয়েছে। রোববার সকালে তিনি মারা যান। পরে স্বামীকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। গ্রেফতারকৃত স্বামী মো.আয়নুল হক কোতোয়ালী থানাধীন বাগবাড়ি এলাকার মাসুক মিয়ার পুত্র। নিহত সুফিয়া বেগম এয়ারপোর্ট থানার খাদিম চা বাগানের মিত্রিঙ্গা লাইন বরইতলা গ্রামে মৃত হারুন মিয়ার কন্যা।

৬ মার্চ : সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার বনগাও সীমান্তে বিজিবি’র সাথে গরু চোরাকারবারিদের সংঘর্ষে ১ চোরাকারবারি নিহত হয়েছে। শনিবার দুপুরে এই ঘটনাটি ঘটে। নিহতের নাম কামাল মিয়া। তিনি রঙ্গাচর ইউনিয়নের ইসলামপুর গ্রামের বাসিন্দা।

৫ মার্চ : মোগলাবাজার কুচাই ইউনিয়নের শ্রীরামপুরে স্বামীর ঘুষিতে স্ত্রী মারা যান। শ্রীরামপুর দক্ষিণ পাড়ার নুর মিয়ার ছেলে শাহিদ আহমদ মোগলাবাজার থানায় এসে আত্মসমর্পণ করেন।

৪ মার্চ : বৃহস্পতিবার রাতে শমসেরনগর সিএনজি ফিলিং স্টেশনে গাড়িতে গ্যাস ভর্তি নিয়ে কথা- কাটাকাটির জেড়ে সিএনজি চালক জলিল মিয়া প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে নিহত হন। নিহত চালক জলিল মিয়া আলীনগর ইউনিয়নের আলীনগর বস্তির বীর মুক্তিযোদ্ধা লাল মিয়ার ছেলে। একই দিনে সুনামগঞ্জের ছাতকে অজ্ঞাতনামা আনুমানিক ২০ বছর বয়সী এক যুবকের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

৩ মার্চ : বুধবার সিলেটের গোলাপগঞ্জের বাঘায় পারিবারিক কলহের জেরে স্বামীর হাতে লাকী বেগম (২৩) নামক এক গৃহবধূ খুন হন। উপজেলার বাঘা ইউনিয়নের দক্ষিণ কান্দিগাঁও গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। তার স্বামী দানা মিয়াকে (৩৪) আটক করে পুলিশ। তিনি বাঘা দক্ষিণ কান্দিগাঁও গ্রামের সুনা মিয়ার ছেলে।

সিলেট জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর ও মিডিয়া) মো. লুৎফুর রহমান বলেন, হত্যাকাণ্ড বেড়েছে বিভিন্ন কারণে। এরমধ্যে পারিবারিক কলহ, জমিজমা ও ব্যক্তিগত শত্রুতার জেরে হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হচ্ছে। মানুষজন এখন তুচ্ছ কারণেও হত্যাকা- ঘটিয়ে ফেলছে। হত্যাকাণ্ডে মতো এমন নৃশংস কাজ থেকে মানুষের ধ্যান ধারনা সরিয়ে নিয়ে পারিবারিক ও সামাজিক ভাবে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© All rights reserved © 2021 sylheter kuj khobor.com
Theme Customized By BreakingNews