1. admin@sylheterkujkhobor.com : admin :
রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০৩:২৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আট বছরে এসএসসি ও ১৭ বছরে এমবিবিএস পাস করেন-ডা.সাবরিনা আপনারা ঢাকা দখল করবেন, আমরা কি ললিপপ খাবো: ফখরুলকে কাদের মেসি আজ মাঠে নামলেই গড়বেন নতুন রেকর্ড বিএনপি নয়াপল্টনে জড়ো হলে পুলিশে এ্যাকশেনে যাবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বিকাশ-রকেটে আনা যাবে বিদেশ থেকে রেমিট্যান্স লেপ কেন লাল কাপড়েই বানানো হয় সিলেট পাসপোর্ট অফিসের পরিচালক মাজহারুল ইসলামের বিরুদ্ধে মহিলাকে হয়রানি ও ভয়ভীতি দেখিয়ে সাদা কাগজে সাক্ষর নেয়ার অভিযোগ বাংলাদেশ তাঁতীলীগ সিলেট সদর উপজেলা শাখার পূর্নাঙ্গ কমিটির অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ঢাকায় আদালত থেকে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামিকে ছিনিয়ে নিলো জঙ্গিরা এডভোকেট নাসির উদ্দিন খান কে শুভেচ্ছা জানালো সিলেট জেলা তাঁতী লীগ-

সিলেট সদর উপজেলায় জানাজার মাঠে মারামারি, আহত ৩

সিলেটের খোঁজখবর
  • আপডেট সময় : বুধবার, ২৯ জুন, ২০২২
  • ৯৯ বার পঠিত

ডেস্ক: সিলেট সদরের হাটখোলায় জানাজায় হামলা ও মারামারিতে সাবেক ইউপি মেম্বারসহ ৩ জন গুরুতর আহত  হয়েছেন। আহতদের মধ্যে ২ জনকে আশংকাজনক অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় সিলেট দায়রা জজ আদালতের পেশকার আবুল হোসেনসহ ১০ জনকে অভিযুক্ত করে মামলার প্রস্তুতি চলছে। আজ বুধবার (২৯ জুন) সিলেট সদরের হাটখালা পিঠারগঞ্জ মাদ্রাসা মাঠে হামলার এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, সিলেট জেলা ও দায়রা  জজ আদালতের পেশকার ও সিলেট সদরের উত্তর হাটখোলা গ্রামের আবুল হোসেনের পিতা আব্দুল কাইয়ুম (আমরু) মঙ্গলবার রাতে মৃত্যুবরণ করেন।

বুধবার  সকালে স্থানীয় পিঠারগঞ্জ আনওয়ারুল উলুম মাদ্রাসা মাঠে ছিল মরহুমের জানাজা। মরহুম আব্দুল কাইয়ুমের সাথে ইউনিয়নের পাইকরাজ গ্রামের সাবেক ইউপি মেম্বার আহমদ হোসেনের লেনদেন ও জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলছিল। মৃত্যুবরণের পর পেশকার আবুল হোসেন মোবাইল ফোনে মেম্বার আহমদ হোসেনকে খবর দেন এবং দেনা পাওনা শেষ করার জন্য বুধবার সকালে বাড়িতে এবং পরে পিঠারগঞ্জ মাদ্রাসা মাঠে তাকে আসতে বলেন।

কথা অনুযায়ী সাবেক মেম্বার আহমদ হোসেন তার স্বজনদের দিয়ে জানাজায় মাদ্রাসা মাঠে উপস্থিত হন। জানাজার পূর্বে লেনদেন নিয়ে কথাবার্তার এক পর্যায়ে উত্তেজিত হয়ে পেশকার আবুল হোসেন ও তার লোকজন মেম্বার আহমদ হোসেনের উপর হামলে পড়েন। হামলায় আহমদ হোসেন, তার আত্মীয় আবুল খায়ের ও আহমদ হোসেনের মা ছমিরুন নেছা  গুরুতর আহত হন।

এ সময় মেম্বার আহমদ হোসেন ও  আবুল খায়ের মাটিতে লুটিয়ে পড়লে স্থানীয়রা সংজ্ঞাহীন অবস্থায় তাদেরকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। বর্তমানে মেম্বার আহমদ হোসেন ও আবুল খায়ের সিলেট ওসমানী হাসপাতালের ৩য় তলার ১১নং ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছেন এবং আবুল খায়েরর অবস্থা আশংকাজনক বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

এ ঘটনায় সিলেট জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পেশকার আবুল হোসেনসহ ১০ জনকে অভিযুক্ত করে সিলেটের (এসএমপির) জালালাবাদ থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মুশাহিদ আলীসহ আহতদের স্বজনরা।

অভিযুক্ত অন্যরা হলেন- পেশকার আবুল হোসেনের ভাই বাবুল হোসেন, নাজমুল ইসলাম ও আফজাল হোসেন, আরব আলী, বুদু মিয়া, ফেরদৌস আহমদ, সামছুল হক, আশরাফুল হক, পেশকার আবুল হোসেনের আত্মীয় আখতারুজ্জামানসহ অজ্ঞাতনামা কয়েকজন।

এ বিষয়ে সিলেট জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পেশকার আবুল হোসেনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, লেনদেন ও জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে মেম্বার আহমদ হোসেন ও তার স্বজনরা আমার পিতার লাশ ছিনিয়ে নিতে চাইলে মুসল্লিরা তাদের  প্রতিহত করেছেন।

জালালাবাদ থানার অফিসার ইনচার্জ নুরুল হুদা বলেন সন্ধ্যা পর্যন্ত এ ঘটনায় আমার কাছে লিখিত কোনো অভিযোগ পৌঁছায়নি। অভিযোগ পাওয়া গেলে আইনত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর










x