1. admin@sylheterkujkhobor.com : admin :
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১১:৩১ অপরাহ্ন

৪২ লক্ষ টাকার মাদকসহ সীমান্ত সম্রাট ফকির আলী ভারতে আটক

  • আপডেট সময় : রবিবার, ১৩ জুন, ২০২১
  • ১৬৬ বার পঠিত

সিলেটের খোজখবর ডেস্কঃ ভারত ও বাংলাদেশের বহুল আলোচিত মাদক ব্যবসায়ী ফকির আলী অবশেষে ভারতের যৌথ বাহিনীর অভিযানে আটক হয়েছে। তাকে করিমগঞ্জ পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করছে। এদিকে মাদক সম্রাট ফকির আলী গ্রেফতারের খবর বিয়ানীবাজার উপজেলার সীমান্তবর্তী দুবাগ ইউনিয়নের গজুকাটা এলাকায় পৌছলে সেখানে সাধারণ মানুষের মধ্যে স্বস্তির নিশ্বাস ফিরে আসে। ফকির আলী বাংলাদেশের আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর মোস্ট ওয়ান্টেড ছিল। সে গজুকাটা এলাকায় দীর্ঘদিন থেকে অবস্থান করে মাদক ব্যবসা চালিয়ে আসছিল। একাধিক সূত্র জানায় মাদক সম্রাট ফকির আলী তার অবস্থান শক্ত করতে গজুকাটা এলাকার শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীর বোনকেও বিয়ে করে।

সীমান্তের একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে, ফকির আলী কৌশলে ভারত থেকে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে মাদক পাচার করতো। ভারত ও বাংলাদেশে সীমান্ত এলাকার জিরো এলাকাকে বেছে নিয়ে ওই এলাকায় অবস্থান করতো। বাংলাদেশ থেকে তার উপর নজরদারীর খবর পেলে ভারত অংশে আর ভারত থেকে নজরদারীর খবর পেলে বাংলাদেশ অংশে অবস্থান করে মাদক ব্যবসা চালিয়ে আসছিল।

ভারত থেকে প্রাপ্ত সূত্রে জানা গেছে, সীমান্ত সুরক্ষা বাহিনীর গোয়েন্দা বিভাগের খবরের ভিত্তিতে ৭ নং ব্যাটেলিয়নে কাঁটাতারের ভিতরের দক্ষিণ লাফাশাইল গ্রামের ফকির আলীর বাড়ীতে ১১ জুন রাতে অভিযান চালিয়ে ৮২৮৭ পিস নেশাজাতীয় ইয়াবা ট্যাবলেট সহ বাংলাদেশের ১৩,৫৭০ টাকা উদ্ধার করে। সঙ্গে ফকির আলীকে আটক করে। বিএসএফ এর ৭ নং ব্যাটেলিয়নে সেকেন্ড ডিফেন্স লাইনের জারাপাতা পোষ্টের পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে রাতে গেইট খোলে দক্ষিণ লাফাশাইল গ্রামের ভিতরে প্রবেশ করে ফকিরের ঘরে অভিযান চালিয়ে এই সাফল্য লাভ করে। জব্দ করা ইয়াবা ট্যাবলেটর মূল্য ৪২ লক্ষ টাকা বলে বিএসএফ এর পক্ষে থেকে জানানো হয়।

বিএসএফ ফকির আলীকে জিজ্ঞেসাবাদ চালিয়ে বহু তথ্য বের করেছে। ফকির আলীর এই ব্যবসায় কে বা কারা কারা জড়িত তার তথ্যও জানতে পেরেছে। তদন্তের স্বার্থে নামগুলো খোলসা করছে না বিএসএফ। নাম প্রকাশ না করলেও এটা জানা গেছে এই ব্যবসায়ের সঙ্গে রাজনৈতিক দলের এক ব্যক্তি জড়িত আছেন। আবার এই ব্যক্তি এক বিধায়কের খুব ঘনিষ্ঠ। ঐ ব্যক্তিকে আবার বিধায়কের ছায়াসঙ্গী হিসেবে সবসময় দেখা যায়। উল্লেখ্য যে চতুর ফকির আলী দীর্ঘদিন ধরে কৌশলে সব ধরনের চোরা কারবার চালিয়ে যাচ্ছিল। বাংলাদেশে ড্রাগস সরবরাহের এই চোরাকারবারে ফকিরের সঙ্গে প্রভাবশালী ব্যক্তি, রাজনৈতিক দলের নেতা সহ অনেক লোক জড়িত।

বিএসএফ ফকিরকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশকে সমঝে দিয়েছে। বর্তমানে ফকির করিমগঞ্জ পুলিশের জিম্মায়। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে পর আরো অনেক তথ্য বেরিয়ে আসবে। বিজিবি’র একটি সূত্র জানায়, ফকির আলীর বিরুদ্ধে তাদের নজরদারী বাড়ানোর ফলে সে লাফাসাই এলাকায় অবস্থান নেয়। আর সেখানেই ভারতীয় বাহিনীর হাতে আটক হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© All rights reserved © 2021 sylheter kuj khobor.com
Theme Customized By BreakingNews